• ১৬ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ , ৩রা বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ , ৭ই শাওয়াল, ১৪৪৫ হিজরি

লংকানদের রান উৎসব ম্যাচে চরম ব্যর্থ টাইগারদের

bijoy71news
প্রকাশিত মার্চ ২৫, ২০২৪
লংকানদের রান উৎসব ম্যাচে চরম ব্যর্থ টাইগারদের

সিলেটে প্রথম টেস্টে পরাজয়ের প্রহর গুনছে বাংলাদেশ। লংকান ব্যাটসম্যানদের রান উৎসবের ম্যাচে চরম ব্যর্থ টাইগাররা। ধনাঞ্জয়া ডি সিলভা ও কামিন্দু মেন্ডিসের জোড়া সেঞ্চুরিতে দ্বিতীয় ইনিংসে শ্রীলংকা অলআউট হওয়ার আগে তোলে ৪১৮ রান। বাংলাদেশের সামনে টার্গেট দেয় ৫১১ রানের। জবাবে তৃতীয় দিন শেষে টাইগাররা ৪৭ রান তুলতে হারিয়েছে পাঁচ উইকেট। জয় দূরের পথ। চতুর্থ দিনে বাংলাদেশ কতক্ষণ টিকে সেটাই বড় প্রশ্ন।

একই উইকেট। অথচ দুই দলের পারফরমেন্সে কতো পার্থক্য! হোম ভেন্যু বাংলাদেশের। অথচ সিলেটের গ্রিণটপের ফায়দা পুরোটাই নিয়েছে শ্রীলংকা। যে উইকেটে লংকানদের রান উৎসব, সেখানেই কিনা টাইগার ব্যাটসম্যানদের রান তুলতে জীবন ওষ্ঠাগত।

জিততে হলে টপকাতে হবে ৫১১ রানের পর্বত। হাতে আছে আড়াই দিন। যদিও বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের তৃতীয় দিনেই খেলা শেষ করার তাড়া। রানের খাতা খোলার আগেই আউট ওপেনার মাহমুদুল হাসান জয়। অধিনায়ক নাজমুল হোসেন শান্ত নেতৃত্বে দিলেন সাঁজঘরে ফেরার মিছিলে।

বিশ্ব ফার্নান্দোর পেস তোপে দিশেহারা টাইগার ব্যাটিং স্পেশালিস্টরা। জাকির হাসান ১৯ রান করলেন ওয়ানডে স্টাইলে মাত্র ২২ বলে। শাহাদাত হোসেন দীপু কিংবা অভিজ্ঞ লিটন দাস, কারো ব্যাটিংয়ে নেই পরিকল্পনার ছাপ। প্রথম বলেই বলকে পাঠাতে চাইলেন লিটন। নিজেই হলেন মাঠ ছাড়া। ৩৭ রানে পাঁচ ব্যাটসম্যান ড্রেসিংরুমে। অভিজ্ঞ মুমিনুল হক ও তাইজুল টিকে আছেন লজ্জা এড়ানোর মিশন নিয়ে।

দ্বিতীয় ইনিংসে শুরুতে দ্রুত উইকেট নিয়ে কামব্যাকের আশা জাগিয়েছিলো বাংলাদেশ। ৫ উইকেটে ১১৯ রানে তৃতীয় দিনের শুরু লংকানদের। দ্রুত ষষ্ঠ উইকেট তুলে নিলেন পেসার খালেদ আহমেদ।

বাংলাদেশের সাফল্য সেখানেই শেষ। টাইগারদের পাড়ার বোলারের কাতারে নামিয়ে আনলেন ধনাঞ্জয়া ডি সিলভা ও কামিন্দু মেন্ডিস। অনেকটা ওয়ানডে স্টাইলে ব্যাটিং করে ম্যাচটা স্বাগতিকদের ধরাছোঁয়ার বাইরে নিয়ে গেছেন এই দুই ব্যাটসম্যান। সপ্তম উইকেটে দুজনের জুটি ১৭৩ রানের। ম্যাচে জোড়া সেঞ্চুরির স্বাদ পেয়েছেন অধিনায়ক ধনাঞ্জয়া। দ্বিতীয় ইনিংসে তার ব্যাট থেকে এসেছে ১০৮ রান।

কামিন্দু মেন্ডিসও পেয়েছেন জোড়া সেঞ্চুরির দেখা। প্রথম ইনিংসে ১০২, এবার আরো বেশি সংহারি রূপ তার। বড় স্কোর গড়তে সাহায্য করেছেন বাংলাদেশের বোলার ও ফিল্ডাররা। এই ম্যাচের আগে সেঞ্চুরি ছিলোনা, কামিন্দুর নামের পাশে এখন দুটি সেঞ্চুরি। নামের পাশে লেখা হয়েছে ক্যারিয়ার সেরা ১৬৪। মিরাজের চার উইকেট শিকার কোন কাজেই আসেনি। ৪১৮ রান তুলে ম্যাচটা অনেকটাই নিজেদের করে নিয়েছে শ্রীলংকা।

অধিনায়ক হিসেবে অভিষেকেই শান্তর সেঞ্চুরি, বাংলাদেশের লিড ২০৫ সিলেট টেস্টে নিউজিল্যান্ডের চেয়ে এগিয়ে রয়েছে বাংলাদেশ। তৃতীয় দিনে বাংলাদেশের হয়ে অধিনায়ক হিসেবে অভিষেকেই সেঞ্চুরি তুলে নিয়েছেন নাজমুল হোসেন শান্ত, যা বাংলাদেশ ক্রিকেট ইতিহাসে প্রথম। তার সেঞ্চুরিতে ৩ উইকেটে ২১২ রান নিয়ে তৃতীয় দিন শেষ করেছে বাংলাদেশ। টাইগারদের লিড ২০৫ রানের। সিলেট টেস্টের তৃতীয় দিনটি পুরোটাই নিজেদের করে নিয়েছে বাংলাদেশ। তৃতীয় দিনের শুরুতে দ্রুত কিউইদের শেষ উইকেট তুলে নিয়ে ব্যাটিংয়ে নামে বাংলাদেশ। ব্যাটিংয়ে নেমে ২৬ রানে ২ উইকেট হারালেও শান্ত ও মুমিনুলের ৯০ রানে ভর করে ঘুরে দাঁড়ায় বাংলাদেশ। মুমিনুল ৪০ রানে ফিরে গেলেও শান্ত তুলে নেন টেস্ট ক্যারিয়ারের পঞ্চম সেঞ্চুরি। ৬৮ ওভারে ২১২ রান তোলার পর আলো স্বল্পতার কারণে তৃতীয় দিনের খেলা সমাপ্ত ঘোষণা করেন আম্পায়াররা। তৃতীয় দিন শেষে কিউইদের বিপক্ষে বাংলাদেশের লিড দাঁড়িয়েছে ২০৫ রান। সিলেট টেস্টের তৃতীয় দিনে কিউইদের শেষ দুই উইকেট তু্লে নিয়ে ব্যাটিংয়ে নামে বাংলাদেশ।ব্যাটিংয়ে নেমে শুরু থেকেই দেখেশুনে খেলতে থাকেন দুই টাইগার ওপেনার মাহমুদুল হাসান জয় ও জাকির হাসান। ১০ ওভারে রান করেন ১৯। যার মধ্যে টাইগারদের লিড দাঁড়ায় ১২। ১২ রান লিড নিয়ে লাঞ্চে যায় বাংলাদেশ। কিন্তু লাঞ্চ থেকে ফিরেই ঘটে ছন্দপতন।দলীয় ২৩ রানে এজাজ পাটেলের বলে এলবিডব্লিউ হয়ে ফিরে যান জাকির হাসান। আউট হওয়ার আগে করেন ৩০ বলে ১৭ রান। জাকির হাসানের পথ ধরে ফিরে যান মাহমুদুল হাসান জয়। আগের ম্যাচে ১৪ রানের জন্য সেঞ্চুরি মিস করা জয় আজ দুর্ভাগ্যজনক রানআউটের শিকার। সাউদির বলে ড্রাইভ খেলেন নাজমুল হোসেন শান্ত, বল বোলারের হাত স্পর্শ করে ভেঙে যায় ননস্ট্রাইকের স্টাম্প। ফলে ৪৬ বলে ৮ রান করে রান আউট কাটা পড়েছেন জয়।তার বিদায়ে ২৬ রানে ২ উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে বাংলাদেশ। ২৬ রানে ২ উইকেট হারানোর পর জুটি গড়েন মুমিনুল ও শান্ত। আগের ম্যাচে তাড়াহুড়ো করে খেলতে থাকা শান্ত আজ শুরু থেকেই খেলতে থাকেন দেখেশুনে। এই জুটিতে ভর করে ৩১ ওভারে দলীয় শতক পূর্ণ করে টাইগাররা। তার লিড ১০০ ছাড়ায় ৩৫ ওভারে।৩৮ ওভারে ১১১ রান করে ১০৪ রানের লিড নিয়ে চা পানের বিরতিতে যায় বাংলাদেশ। বিরতি থেকে ফিরে কিউইদের বিপক্ষে অর্ধশতক তুলে নেন নাজমুল হোসেন শান্ত।প্রথম ইনিংসে ৩৭ রানে সাজঘরে ফিরে যাওয়ার পর আজ দ্বিতীয় ইনিংসে ৯৫ বলে তুলে নেন ৫০ রান। শান্তর পথ ধরে মুমিনুল হকও এগিয়ে যাচ্ছিলেন অর্ধশতকের দিকে। কিন্তু রান আউটের শিকার হয়ে ৬৮ বলে ৪০ রান করে ফিরে যান সাজঘরে। তার বিদায়ে ১১৬ রানে ৩ উইকেট হারায় টাইগাররা। মুমিনুলের বিদায়ের পর মুশফিকের সঙ্গে জুটি গড়েন শান্ত। প্রথম ইনিংসে ১২ রানে সাজঘরে ফিরে যাওয়া মুশি আজ শুরু থেকেই দেখেশুনে খেলতে থাকেন। এই জুটিতে ভর করে ৫৬ ওভারে লিড ১৫০ পূর্ণ করে বাংলাদেশ। কিউইদের বিপক্ষে ৯৫ বলে অর্ধশতক তুলে নেওযার পর ১৯২ বলে তুলে নেন সেঞ্চুরি।যার মধ্যে রয়েছে ৯ টি চারের মার। টেস্ট অধিনায়ক হিসেবে অভিষেকেই সেঞ্চুরি করলেন শান্ত। যা বাংলাদেশ ক্রিকেট ইতিহাসে প্রথম। ৬৮ ওভারে তিনি উইকেট হারিয়ে ২১২ রান করার পর আলো স্বল্পতার কারণে তৃতীয় দিনের খেলা সমাপ্ত ঘোষণা করেন আম্পায়াররা। তৃতীয় দিন শেষে কিউইদের বিপক্ষে বাংলাদেশের লিড দাঁড়িয়েছে ২০৫ রান।