• ২৪শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ , ১০ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ , ১৬ই জিলকদ, ১৪৪৫ হিজরি

ভারতকে কাঁদিয়ে ষষ্ঠ বিশ্বকাপ শিরোপা ঘরে তুললো অস্ট্রেলিয়া

bijoy71news
প্রকাশিত নভেম্বর ২০, ২০২৩
ভারতকে কাঁদিয়ে ষষ্ঠ বিশ্বকাপ শিরোপা ঘরে তুললো অস্ট্রেলিয়া

ঘরের মাঠে অনুষ্ঠিত বিশ্বকাপে উড়তে থাকা ভারতকে অবশেষে টেনে মাটিতে নামালো অস্ট্রেলিয়া। ভারতের মাটিতে ভারতকে হারিয়ে নিজেদের হেক্সা মিশন পূর্ণ করলো অজিরা। আইসিসি ওয়ানডে বিশ্বকাপের ১৩তম আসেরর ফাইনালে ট্রাভিস হেডের সেঞ্চুরি ও মার্নাস লাবুশেনের অর্ধশতকে ভর করে ভারতকে ৬ উইকেটের বিশাল ব্যবধানে হারিয়ে ষষ্ঠ বিশ্বকাপ শিরোপা ঘরে তুললা অস্ট্রেলিয়া।

কথায় বলে শেষ ভালো যার সব ভালো তার। ভারতের ক্ষেত্রে যেনো একদম কাটায় কাটায় মিলে গেলো কথাটা। ২০২৩ বিশ্বকাপে গ্রুপ পর্বের ৯ ম্যাচ ও সেমিফাইনালসহ ১০ ম্যাচে অপরাজিত থেকে ফাইনালে পা রাখে ভারত। কিন্তু ফাইনালে পৌঁছেই খেই হারিয়ে ফেললো তারা। ফাইনালে অজিদের বিপক্ষে টিস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে মিচেল স্টার্ক, প্যাট কামিন্স এবং জশ হ্যাজেলউডের বোলিং তোপে মাত্র ২৪০ রান তুলতে সক্ষম হয় তারা। ভারতের ব্যাটাররা সবাই আজ ছিলেন আসা যাওয়ার মিছিলে। বিরাট কোহলি, লোকেশ রাহুল অর্ধশতক তুলে নিলেও তা কাজে লাগেনি।

ভারতের দেওয়া ২৪১ রানের লক্ষে ব্যাটিং করতে নেমে অজিরাও পড়ে ব্যাটিং ব্যর্থতায়। মাত্র ৪৭ রানেই ৩ উইকেট হারায় তারা। তবে দলটার নাম অস্ট্রেলিয়া। পাহাড়সম চাপ সামলে লড়াই করতে জানেন তারা। গ্রুপ পর্বে ৯১ রানে ৭ উইকেট পড়ে যাওয়ার পর ২০১ রান করে দলকে জয় উপহার দেন গ্লেন ম্যাক্সওয়েল। আর আজ ৪৭ রানে ৩ উইকেট হারানোর পর জুটি গড়ে দলকে জয় উপহার দেন ট্রাভিস হেড ও মার্নাস লাবুশেন। ট্রাভিস হেডের ১২০ বলে ১৩৭ রান আর মার্নাস লাবুশেন অপরাজিত ৫৮ রানে ভর করে ৪৩ ওভারে ৪ উইকেট হারিয়ে জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় অস্ট্রেলিয়া।

ভারতের দেওয়া লক্ষ তাড়া করতে নেমে শুরু থেকেই তাণ্ডব চালাতে থাকেন অজি ব্যাটাররা। প্রথম ওভারেই নেন ১৫ রান। কিন্তু এর পরের ওভারেই ঘটে ছন্দপতন।

৩ বলে ৭ রান করা ডেভিড ওয়ার্নারকে ফেনার মোহাম্মদ শামি। মোহাম্মদ শামির বলে স্লিপে বিরাট কোহলির হাতে ক্যাচ তুলে দিয়ে ফিরে যান তিনি। তার বিদায়ে ১৬ রানেই ওপেনিং জুটি ভাঙে অস্ট্রেলিয়ার।

ডেভিড ওয়ার্নারের বিদায়ের পর ট্রাভিস হেডকে নিয়ে জুটি গড়েন মিচেল মার্শ। এই জুটি দলের বিপর্যয় কাটিয়ে ওঠার চেষ্টা করে। কিন্তু ব্যর্থ হন তারা। দলীয় ৪১ রানে মিচেল মার্শের ভেঙে যায় এই জুটি।

১৫ বলে ১৫ রান করে জাসপ্রিত বুমরাহর বলে উইকেট রক্ষক লোকেশ রাহুলের হাতে ক্যাচ তুলে দিয়ে ফিরে যান সাজঘরে। তার বিদায়ে ৪১ রানে ২ উইকেট হারিয়ে বিপদে পড়ে অস্ট্রেলিয়া।

অস্ট্রেলিয়ার বিপদ আরও বাড়িয়ে দলীয় ৪৭ রানে ফিরে যান স্টিভেন স্মিথও। ৯ বলে ৪ রান করে জাসপ্রিত বুমরাহর বলে এলবিডব্লিউয়ের শিকার হয়ে ফিরে যান তিনি।

৪৭ রানে ৩ উইকেট হারানোর পর দলের হাল ধরেন ট্রাভিস হেড ও মার্নাস লাবুশেন। দেখেশুনে খেলতে থাকেন এই দুই ব্যাটার। উইকেট ধরে রেখে সিঙ্গেল নিয়ে খেলতে থাকেন তারা। এই জুটিতে ভর করে ১৯ ওভার ১ বলে দলীয় শতক পূর্ণ করে অস্ট্রেলিয়া।

এর পরেই বিশ্বকাপের ফাইনালে সেঞ্চুরি তুলে নেন ট্রাভিস হেড। ৫৮ বলে অর্ধশতক তুলে নেওয়ার পর ৯৫ বলে তুলে নেন সেঞ্চুরি। যার মধ্যে রয়েছে ১৪ টি চার ও ১ টি ছয়ের মার।

ট্রাভিস হেডের পর অর্ধশতক তুলে নেন মার্নাস লাবুশেন। ৯৯ বলে ৫০ রান করেন তিনি। দলীয় ২৩৯ রানে ট্রাভিস হেডের বিদায়ে ভেঙে যায় এই জুটি। শেষ পর্যন্ত ৪৩ ওভারে ৪ উইকেট হারিয়ে জয় তুলে নেয় অজিরা। ট্রাভিস হেড করেন ১২০ বলে ১৩৭ রান আর মার্নাস লাবুশেন অপরাজিত থাকেন ৫৮ রানে।

এর আগে অজিদের বিপক্ষে টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে মাত্র ৩০ রানেই প্রথম উইকেট হারিয়ে আহমেদাবাদের নরেন্দ্র মোদি স্টেডিয়ামে উপস্থিত লাখ খানেক দর্শককে কষ্টের ভেলায় ভাসিয়ে নিয়ে যায় ভারত। এরপর নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারাতে থাকে ভারত। বিরাট কোহলি ও লোকেশ রাহুল অর্ধশতক তুলে নিলেও অন্য ব্যাটাররা ছিলেন ব্যর্থ। শুভমান গিল, শ্রেয়াস আইয়ার, রবীন্দ্র জাদেজা, মোহাম্মদ শামি, জাসপ্রিত বুমরাহ দুই অঙ্কের ঘরে পৌঁছাতেই পারেননি। নবম উইকেট জুটিতে সূর্যকুমার যাদব ও কুলদ্বীপ যাদবের ১২ রানের জুটি ও দশম উইকেট জুটিতে কুলদ্বীপ যাদব ও মোহাম্মদ সিরাজের ১৪ রানের জুটিতে ভর করে নির্ধারিত ৫০ ওভারে সব উইকেট হারিয়ে ২৪০ রান তুলতে সক্ষম হয় ভারত।

অধিনায়ক হিসেবে অভিষেকেই শান্তর সেঞ্চুরি, বাংলাদেশের লিড ২০৫ সিলেট টেস্টে নিউজিল্যান্ডের চেয়ে এগিয়ে রয়েছে বাংলাদেশ। তৃতীয় দিনে বাংলাদেশের হয়ে অধিনায়ক হিসেবে অভিষেকেই সেঞ্চুরি তুলে নিয়েছেন নাজমুল হোসেন শান্ত, যা বাংলাদেশ ক্রিকেট ইতিহাসে প্রথম। তার সেঞ্চুরিতে ৩ উইকেটে ২১২ রান নিয়ে তৃতীয় দিন শেষ করেছে বাংলাদেশ। টাইগারদের লিড ২০৫ রানের। সিলেট টেস্টের তৃতীয় দিনটি পুরোটাই নিজেদের করে নিয়েছে বাংলাদেশ। তৃতীয় দিনের শুরুতে দ্রুত কিউইদের শেষ উইকেট তুলে নিয়ে ব্যাটিংয়ে নামে বাংলাদেশ। ব্যাটিংয়ে নেমে ২৬ রানে ২ উইকেট হারালেও শান্ত ও মুমিনুলের ৯০ রানে ভর করে ঘুরে দাঁড়ায় বাংলাদেশ। মুমিনুল ৪০ রানে ফিরে গেলেও শান্ত তুলে নেন টেস্ট ক্যারিয়ারের পঞ্চম সেঞ্চুরি। ৬৮ ওভারে ২১২ রান তোলার পর আলো স্বল্পতার কারণে তৃতীয় দিনের খেলা সমাপ্ত ঘোষণা করেন আম্পায়াররা। তৃতীয় দিন শেষে কিউইদের বিপক্ষে বাংলাদেশের লিড দাঁড়িয়েছে ২০৫ রান। সিলেট টেস্টের তৃতীয় দিনে কিউইদের শেষ দুই উইকেট তু্লে নিয়ে ব্যাটিংয়ে নামে বাংলাদেশ।ব্যাটিংয়ে নেমে শুরু থেকেই দেখেশুনে খেলতে থাকেন দুই টাইগার ওপেনার মাহমুদুল হাসান জয় ও জাকির হাসান। ১০ ওভারে রান করেন ১৯। যার মধ্যে টাইগারদের লিড দাঁড়ায় ১২। ১২ রান লিড নিয়ে লাঞ্চে যায় বাংলাদেশ। কিন্তু লাঞ্চ থেকে ফিরেই ঘটে ছন্দপতন।দলীয় ২৩ রানে এজাজ পাটেলের বলে এলবিডব্লিউ হয়ে ফিরে যান জাকির হাসান। আউট হওয়ার আগে করেন ৩০ বলে ১৭ রান। জাকির হাসানের পথ ধরে ফিরে যান মাহমুদুল হাসান জয়। আগের ম্যাচে ১৪ রানের জন্য সেঞ্চুরি মিস করা জয় আজ দুর্ভাগ্যজনক রানআউটের শিকার। সাউদির বলে ড্রাইভ খেলেন নাজমুল হোসেন শান্ত, বল বোলারের হাত স্পর্শ করে ভেঙে যায় ননস্ট্রাইকের স্টাম্প। ফলে ৪৬ বলে ৮ রান করে রান আউট কাটা পড়েছেন জয়।তার বিদায়ে ২৬ রানে ২ উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে বাংলাদেশ। ২৬ রানে ২ উইকেট হারানোর পর জুটি গড়েন মুমিনুল ও শান্ত। আগের ম্যাচে তাড়াহুড়ো করে খেলতে থাকা শান্ত আজ শুরু থেকেই খেলতে থাকেন দেখেশুনে। এই জুটিতে ভর করে ৩১ ওভারে দলীয় শতক পূর্ণ করে টাইগাররা। তার লিড ১০০ ছাড়ায় ৩৫ ওভারে।৩৮ ওভারে ১১১ রান করে ১০৪ রানের লিড নিয়ে চা পানের বিরতিতে যায় বাংলাদেশ। বিরতি থেকে ফিরে কিউইদের বিপক্ষে অর্ধশতক তুলে নেন নাজমুল হোসেন শান্ত।প্রথম ইনিংসে ৩৭ রানে সাজঘরে ফিরে যাওয়ার পর আজ দ্বিতীয় ইনিংসে ৯৫ বলে তুলে নেন ৫০ রান। শান্তর পথ ধরে মুমিনুল হকও এগিয়ে যাচ্ছিলেন অর্ধশতকের দিকে। কিন্তু রান আউটের শিকার হয়ে ৬৮ বলে ৪০ রান করে ফিরে যান সাজঘরে। তার বিদায়ে ১১৬ রানে ৩ উইকেট হারায় টাইগাররা। মুমিনুলের বিদায়ের পর মুশফিকের সঙ্গে জুটি গড়েন শান্ত। প্রথম ইনিংসে ১২ রানে সাজঘরে ফিরে যাওয়া মুশি আজ শুরু থেকেই দেখেশুনে খেলতে থাকেন। এই জুটিতে ভর করে ৫৬ ওভারে লিড ১৫০ পূর্ণ করে বাংলাদেশ। কিউইদের বিপক্ষে ৯৫ বলে অর্ধশতক তুলে নেওযার পর ১৯২ বলে তুলে নেন সেঞ্চুরি।যার মধ্যে রয়েছে ৯ টি চারের মার। টেস্ট অধিনায়ক হিসেবে অভিষেকেই সেঞ্চুরি করলেন শান্ত। যা বাংলাদেশ ক্রিকেট ইতিহাসে প্রথম। ৬৮ ওভারে তিনি উইকেট হারিয়ে ২১২ রান করার পর আলো স্বল্পতার কারণে তৃতীয় দিনের খেলা সমাপ্ত ঘোষণা করেন আম্পায়াররা। তৃতীয় দিন শেষে কিউইদের বিপক্ষে বাংলাদেশের লিড দাঁড়িয়েছে ২০৫ রান।