• ২৪শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ , ১০ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ , ১৬ই জিলকদ, ১৪৪৫ হিজরি

জয় হোক মানবতার…

bijoy71news
প্রকাশিত এপ্রিল ১, ২০২০

এখলাছ আহমেদ তন্ময় ::
‘যে মঞ্চে এতোদিন নাটকের সংলাপ, গান, আবৃত্তি, নৃত্য আর শিল্পের চর্চা হতো প্রতিনিয়ত। যেখানে হল ভর্তি দর্শক ছিল শিল্পের প্রাণ। সেই মঞ্চের দর্শক সারি আজ ফাঁকা, সুনশান নীরবতা। যে মঞ্চ থেকে ফুটে ওঠত মানবতার কথা। আজ সেই দর্শকশুন্য হলে মানবতার কল্যাণে সম্মিলিত নাট্য পরিষদের উদ্যোগে প্রস্তুত করছি শতশত নিম্ন আয়ের মানুষের জন্য সামন্য কিছু খাবার। আমাদের বিশ্বাস, আর বেশি দিন নয়; খুব তাড়াতাড়ি আমরা আবার সেই চিরচেনা মঞ্চে শিল্প সাধনায় মত্ত হবো। হল ভর্তি দর্শক আমদের অক্সিজেন দেবে। জয় হোক মানবতার, জয় হোক নাটকের।’-এটি একটি স্ট্যাটাস। সামাজিত যোগাযোগ মাধ্যমে এই পোস্টটি এখন ভাইরাল। নিজের ফেইসবুক আইডি থেকে ৩ দিন আগে এ পোস্টটি করেছিলেন সম্মিলিত নাট্যপরিষদের সাধারণ সম্পাদক রজত কান্তি গুপ্ত। গত তিনদিন তাঁর এ পোস্ট অনেকেই কপি ও শেয়ার করেছেন।
কারণ একটাই-নিজেদের দ্বায়িত্ববোধ থেকে যে-কোনো মানবিক কাজে এগিয়ে আসে নাট্যকর্মীরা। পুরো বিশ্ব করোনা ভাইরাসের মহামারিতে যখন স্তব্ধ, তখন সরকারি স্বাস্থ্যবিধি মেনে নাট্যকর্মীরা মানুষের জন্য সবটুকু শ্রম বিলিয়ে দিচ্ছেন। সিলেট নাট্যাঙ্গণের অভিভাবক সংগঠন সম্মিলিত নাট্যপরিষদ সবকটি নাট্য সংগঠন ও সাংস্কৃতিক কর্মী, আইনজীবী, ডাক্তার, ব্যবসায়ী, রাজনৈতিক কর্মী, সাংবাদিক ও বিভিন্ন পেশাজীবীদের সহযোগিতায় প্রায় পাঁচ হাজার পরিবারের মধ্যে খাদ্য বিতরণ কর্মসূচি বাস্তবায়নে এ উদ্যোগ হাতে নিয়েছে।
সম্মিলিত নাট্য পরিষদ সিলেট সাধারণ সম্পাদক রজত কান্তি গুপ্ত বলেন, ইতোমধ্যে গত দু’দিনে খাদ্যসামগ্রীর ছয়শ প্যাকেট করা হয়েছে। আজ থেকে বিতরণ শুরু হবে। এই কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে। অঘোষিত লকডাউন দীর্ঘমেয়াদিও হতে পারে। পরিবর্তীসময়েও আমাদের এই কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে। এই বিতরণ কর্মসূচি দরিদ্র ও নিম্ন মধ্যবিত্তদের জন্য। যারা কারো কাছে যেতে পারেন না আমরা তাদের পাশেও থাকব।
এদিকে, কার্যক্রম সফল ও বাস্তবায়নে সিলেটের প্রশাসন, রাজনীতিবিদ ও বিভিন্ন সংগঠন, আইনজীবী, সাংবাদিক, ডাক্তার, ব্যবসায়ী ও বিভিন্ন পেশাজীবীদের সার্বিকভাবে সহযোগিতা কামনা করেন নাট্যপরিষদের সভাপতি মিশফাক আহমেদ মিশু।